সোনালি সিংহ তামারিন

সোনালি সিংহ তামারিন


সোনালি সিংহ তামারিন (Golden lion tamarin) সিংহের মতো কেশরযুক্ত এক ধরনের বানর। শরীরের আকার ১০-১২ ইঞ্চি, ওজন আধা কেজির সামান্য বেশী। গায়ের রং উজ্জ্বল সোনালি, শরীর ও মুখমন্ডলের চারপাশে সিংহের মতো কেশরযুক্ত। সিংহের মতো কেশরের কারণেই সম্ভবত এদের এরকম নাম দেয়া হয়েছে। বিপন্ন বানরদের মধ্যে এরা অন্যতম। ব্রাজিলের দক্ষিণ-পূর্বে আটলান্টিক মহাসাগরের কোল ঘেঁসে খুব ছোট এলাকাজুরে এদের বিস্তার।

বনাঞ্চলকে মানুষের আবাসস্হলে পরিণত করার ফলশ্রুতিতে ব্যপকহারে তামারিনদের আবাসস্হল ধ্বংস হওয়ায় প্রজাতিটি প্রায় বিলুপ্তির পর্যায়ে চলে যায়। ১৯৯২ সালের এক জরিপের হিসাব অনুযায়ি মাত্র ৫৬২ টি তামারিন প্রাকৃতিক পরিবেশে বেঁচে আছে বলা হয়। এক পর্যায়ে এদের সংখ্যা দুইশতে নেমে আসে। পরবর্তীতে  ব্রাজিল সরকার এবং কিছু সংগঠন তামারিনদের সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয়ায় বর্তমানে এদের সংখ্যা সবগুলো অভয়ারণ্য মিলে প্রায় এক হাজার। ধারণা করা হচ্ছে ২০১৫ সাল নাগাদ এদের সংখ্যা দুই হাজারে পৌঁছাবে।

উপরের ছবিটি ডেনভার চিড়িয়াখানায় তোলা হয়েছে। তামারিন খুবই অস্হির প্রকৃতির, কোথাও একটুও স্হির হয়ে বসে না। বিপন্ন এবং নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের প্রাণি বলে এদেরকে বিশেষ ধরনের নিয়ন্ত্রিত তাপমাত্রার পরিবেশে রাখা হয়েছে। কাঁচের ঘরের ভিতর গাছের ডালপালা ছড়িয়ে ওদের উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করা আছে।

যেকোন বন্যপ্রাণির ছবি তোলার জন্যই প্রাণিটির স্বভাব ভালোমতো জানা থাকতে হয়। এই ছবিটা তোলার আগেও বেশ কিছুক্ষণ এদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করেছি। লক্ষ্য করেছি ঘুরে ঘুরে চার-পাঁচটি স্হানেই এরা ১-২ সেকেন্ডের জন্য স্হির হচ্ছিল। সেভাবেই একটা জায়গা ঠিক করে নিলাম যেকানে এসে বসলেই ছবি তুলবো। একটু দূরে থেকে দর্শকদের ভিড় এড়িয়ে ক্যামেরা ফোকাস করে অপেক্ষা করেছি কখন একটা তামারিন আমার ফ্রেমে এসে বসে।

যে ঘরে তামারিনদের রাখা হয়েছে সেখানে আলোর পরিমাণ খুবই কম। এদের ছটফটানি এত বেশী যে দ্রুত সাটার স্পিডে ছবি নিতে হবে। তাই আইএসও ১০০০-এ নিতে হলো। এপারচার ৪ এ রেখে সাটার স্পিড সর্বোচ্চ দেয়া গেল ১/৬০। এই সেটাপে বেশ কিছুক্ষণ চেষ্টার পর অনেকগুলো ছবির মধ্যে থেকে উপরের ছবিটি মোটামুটি ভালো পাওয়া গেল। ক্যানন ৪০ডি ক্যামেরায় উঁচু আইএসওতে  নয়েজ বেশ স্পষ্ট বোঝা যায়। ১০০০ আইএসওতে ছবি এরচে ভালো আনা বেশ কঠিন। তার উপর ট্রাইপড/মনোপড ছাড়াই ক্যামেরা হাতে নিয়ে  ছবি তোলা। ৩০০মিমি ক্যানন এফ-৪ এল লেন্সে ১/৬০ এক্সপোজারে তোলা হলেও ইমেজ স্ট্যাবিলাইজার থাকার কারণে ছবিটিতে কাঁপুনি ততটা বোঝা যায় না। ডিপিপি-তে পোস্ট প্রসেস করার সময় কালার ও শার্পনেস ঠিক করা হয়েছে। কোয়ালিটি ঠিক রেখে নয়েজ সামান্য কমানো হয়েছে। সার্বিকভাবে ছবিটি যতটা সম্ভব ন্যাচারাল রাখা হয়েছে।

নিচের ছবিটি ১০ ফ্রেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে যোগ করা হয়েছে।

সোনালি সিংহ তামারিন - Golden Lion Tamarin

সোনালি সিংহ তামারিন – Golden Lion Tamarin / এনায়েতুর রহীম

2 Comments

Add yours
  1. 1
    nurulamin

    সুন্দর হয়েছে ছবিটা – আর তামারিন কে পরিচয় করিয়ে দেবার জন্য ধন্যবাদ ।

  2. 2
    Enayet

    ধন্যবাদ রাসেল। সেই সাথে আরো ধন্যবাদ নিসর্গের ফেইসবুকের প্রোফাইল ছবিটি আপডেট করে দেয়ার জন্য।

+ Leave a Comment

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.